ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় করার উপায় কি?

ইউটিউব হচ্ছে অন্যতম ভিডিও শেয়ারিং সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম। আপনি হয়ত বিনোদনের জন্য ইউটিউবে অনেক সময় ব্যায় করে থাকেন। কিন্তু কখনও ভেবে দেখেছেন ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় করার উপায় কি আছে? ভাবতেছেন ইউটিউব থেকে আয় করার সহজ উপায় কি অথবা কিভাবে ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় করা যায়? এই আর্টিকেল থেকে জানতে পারবেন ইউটিউব চ্যানেল থেকে টাকা ইনকাম করার উপায় কি এবং youtube থেকে আয় করার উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত।

ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় করার উপায়
ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় করার উপায়

ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় করার উপায় এবং ইউটিউব ভিডিও মনিটাইজ করার নিয়ম

ইউটিউব থেকে আয় করতে হলে আপনার ইউটিউবে একটি চ্যানেল থাকতে হবে। চ্যানেল খুলার পর আপনাকে ভিডিও আপলোড করতে হবে। এবং ইউটিউব ভিডিও মনিটাইজ করতে হবে। এটি হচ্ছে ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় করার সেরা উপায়। ইউটিউব ভিডিও মনিটাইজেশন করার নিয়ম হচ্ছে যেদিন ইউটিউব ভিডিও মনিটাইজ করার জন্য আবেদন করবেন সেদিন থেকে গত ৩৬৫ দিনে ৪ হাজার ঘণ্টা ভিউ থাকতে হবে। আর ১ হাজার সাবস্ক্রাইবার থাকতে হবে।

যদি আপনি একদিনে ৪ হাজার ঘণ্টা ভিউ এবং ১ হাজার সাবস্ক্রাইবার করতে পারেন তাহলে আপনি একদিনে youtube channel monetization enable করতে পারবেন। monetization হল এমন একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে ইউটিউব আপনার ভিডিওতে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করে ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় হয়ে থাকে। ইউটিউব চ্যানেল মনিটাইজেশন approve হয়ে যাওয়া মানে আপনার ইনকাম শুরু হয়ে যাওয়া।

ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় করার উপায় ৫টি

  1. ইউটিউব অ্যাডসেন্স থেকে আয়
  2. অ্যাফিলিয়েট লিংকের মাধ্যমে আয়
  3. নিজের পণ্য বা সার্ভিস বিক্রি করে আয়
  4. স্পন্সরশিপের মাধ্যমে আয়
  5. ডোনেশন থেকে আয়

ইউটিউব অ্যাডসেন্স থেকে আয়
ইউটিউবার হিসেবে ইউটিউব থেকে আয় করার সহজ উপায় হল এডসেন্স। আপনি নিশ্চয় বিভিন্ন ইউটিউব ভিডিও শুরু হওয়ার আগে এবং চলাকালীন সময়ে বিজ্ঞাপন দেখতে পান। বেশিরভাগ ইউটিউবার-রাই ভিডিওতে দেখানো বিজ্ঞাপন থেকেই আয় করে। এই ইউটিউব অ্যাডসেন্স এর মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে অনেক ইউটিউবাররা অনেক টাকা আয় করছে।


মনে করেন আপনি একটি ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করলেন। সেখানে অনেকগুলো ভিডিও আপলোড করেন। তাহলে আপনার ভিডিওগুলো যখন মানুষ দেখতেছে তখন গ্রামীণফোন এর একটি অ্যাড আসলো। এই এড এর বিনিময়ে গ্রামীণফোন ইউটিউব কে যে পরিমাণ টাকা দিবে তার থেকে কিছু অংশ আপনি ভিডিও তৈরি করছেন এজন্য আপনাকে ইউটিউব দিবে। এই অ্যাড এর বিনিময়ে কিছু টাকা পাওয়ার মাধ্যমেই হচ্ছে অ্যাডসেন্স। ফলে দুজনেরই লাভ।

অ্যাফিলিয়েট লিংকের মাধ্যমে আয়
এটি একটি অন্যতম ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় করার উপায়। আপনার ভিডিওর মাধ্যমে অন্য কোন কোম্পানির পণ্য বিক্রি করে দেওয়ার মাধ্যমই হচ্ছে অ্যাফিলিয়েট। আমরা যে ইউটিউব চ্যানেল খুলবো সেখানে যখন লক্ষ লক্ষ ভিউ হবে।

তখন সেই চ্যানেলের ভিডিও ডেসক্রিপশন বক্সে যে লিংক দেওয়া হবে। সেই লিংক থেকে যদি কেউ কোন পণ্য কিনে তাহলে সেই কোম্পানি নির্দিষ্ট পরিমাণ কমিশন দিয়ে থাকে। যেমন অ্যামাজন, আলীএক্সপ্রেস, ইবে বাংলাদেশের বিভিন্ন ই-কমার্স কোম্পানি যেমন আজকের ডিল, দারাজ এদের পণ্য বিক্রি করে দিলে 5% থেকে টেন পারসেন্ট কমিশন দিয়ে থাকবে।

নিজের পণ্য বা সার্ভিস বিক্রি করে আয়
নিজের পণ্য বা সার্ভিস বিক্রি করে ইউটিউব থেকে আয় করার পদ্ধতি অতুলনীয়। ইউটিউব চ্যানেল একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে গ্রো করতে সহায়তা করে। আপনার যদি কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থাকে সেই ব্যবসার পণ্য বা সার্ভিস বিক্রি করতে পারবেন নিজের ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে। এভাবেও অনেক ইউটিউবার নিজের ইউটিউব চ্যানেল থেকে প্রচুর অর্থ উপার্জন করছেন। তবে ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে পণ্য বা সার্ভিস বিক্রির পদ্ধতি অনেকের কাছে অপছন্দের।

স্পন্সরশিপের মাধ্যমে আয়
স্পন্সর অ্যাড হচ্ছে ইউটিউব থেকে আয় করার ভাল পদ্ধতি। মনে করেন আপনি বিউটি কেয়ার নিয়ে ভিডিও তৈরি করতেছেন। কিভাবে আরো সুন্দর বা সুন্দরী হওয়া যায়। এখন ফেয়ার অ্যান্ড লাভলি কম্পানি বলতে পারে এই ভিডিওগুলো যারা দেখে তারা তো আমার কাস্টমার হতে পারে তখন ওই ইউটিউবারের সাথে কন্টাক্ট করে কিছু কন্ডিশনে বা টাকার বিনিময়ে ভিডিও আপলোড করে। এটাই হচ্ছে স্পন্সর ভিডিও।

ডোনেশন থেকে আয়
অনেক সময় ভিউয়ারস দের কাছে অনেক পছন্দের ভিডিও হতে পারে এজন্য খুশি হয়ে কিছু টাকা ডোনেট করতে পারে। চ্যানেলের ফ্যানরা আপনার ভিডিও দেখে আপনাকে কিছু অর্থ নিজের পকেট থেকে ডোনেট করার প্রক্রিয়াটিও ইউটিউবে আছে। প্যাট্রেয়ন নামক একটি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে এই বিষয়টি হয়ে থাকে। এতে ইউটিউবে আয়ের পরিমাণ খুব কম হয়।

ইউটিউব চ্যানেল থেকে কত টাকা আয় করা যায়?

শুধু অ্যাডসেন্স এর উপর নির্ভর করলে চ্যানেলের ভিডিও দেখলেও আপনার youtube থেকে আয় হবে না। যদি ভিডিও দেখার সময় বিজ্ঞাপন না শো করে। এমনকি আপনার চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার এর উপর ইনকাম এর পরিমাণ নির্ভর করে না। ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় করার পরিমাণ নির্ভর করে আপনার চ্যানেলের ভিডিওগুলো থেকে কতবার মানুষ বিজ্ঞাপন দেখলো তার উপর। যদি আপনার youtube channel videos view বেশি থাকে। তাহলে, আপনার ইউটিউব চ্যানেল থেকে অনেক টাকা উপার্জন করতে পারবেন।

একটি ইউটিউব চ্যানেল থেকে সর্বোচ্চ 1 লক্ষ টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনার ইউটিউব চ্যানেলে প্রচুর পরিমাণ ভিউয়ার থাকতে হবে। ইউটিউবের ভিডিও যত বেশি ভিউ হবে তত বেশি অ্যাড দেখার চাঞ্চ থাকবে। আর অ্যাড দেখলে তো ইনকাম বাড়বে। আর স্পন্সরশিপ পেলে তো আরও বেশি আয় হবে। তাই ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় এর পরিমাণ বেশি করতে হলে মাল্টিপল অপশন রাখতে হবে। ইউটিউব এ যতদিন ভিডিও থাকবে ততদিন ইনকাম হতেই থাকবে।

ইউটিউব কত ভিউতে কত টাকা দেয়?




আমি আগেই বলেছি ইউটিউব ভিউ এর জন্য টাকা দেয় না। টাকা দেই কতগুল বিজ্ঞাপন ভিউ হইলো তার জন্য। তবে ১ হাজার ভিউতে কতগুলো অ্যাড ভিউ হতে পারে তার একটি আনুমানিক ধারণা দেওয়া হল।

আপনার ভিডিও যদি বাংলাদেশে কিংবা ভারতে ভিউ হয় তাহলে আপনার আয় কম হবে। কেননা বাংলাদেশের বা ভারতের সি পি সি কম। বাংলাদেশের সি পি সি ০.০১-০.১৯ ডলার পর্যন্ত হয়ে থাকে।
আর যদি আপনার ভিডিও এর ভিউ আমেরিকা, ইংল্যান্ড, কানাডা এমন উন্নত দেশে হয় তাহলে বাংলাদেশের তুলনায় কয়েক গুন বেশি হবে। তাদের সি পি সি ০.১০-৩.০০ ডলার পর্যন্ত হয়ে থাকে।

ইউটিউব থেকে পেমেন্ট নিবেন কিভাবে?

ইউটিউব গুগলের সার্ভিস তাই আপনার যদি অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্টে ডলার জমা হয় তাহলে আপনি নিশ্চিন্তে থাকেন আপনার হাতে টাকা পাবেন। ইউটিউবের ইনকাম কিন্তু প্রত্যেক দিন ব্যালেন্সে জমা হয় না। প্রত্যেক মাসে একবার জমা হয়। আপনি যখন মনিটাইজেশন এর জন্য এপ্লাই করেন তখন আপনার যেই নাম, ঠিকানা দিয়েছিলেন অ্যাডসেন্সে ১০ ডলার হলে একটি চিঠি পাঠাবে অ্যাড্রেস ভেরিফিকেশনের জন্য।

পিন ভেরিফাই হয়ে গেলে ইউটিউব কনফার্ম হয়ে গেল আপনার ঠিকানা সঠিক। তারপর আপনার অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্টে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট যুক্ত করতে বলবে। এবং ১০০ ডলার হলে গুগল পেমেন্ট করবে।

ব্যাংক অ্যাকাউন্ট না থাকলেও সমস্যা নাই আপনি চেকের মাধ্যমেও পেমেন্ট নিতে পারবেন। আপনি বলতে পারেন কোন ব্যাংকে টাকা নিবেন, বাংলাদেশের যেকোনো ব্যাংকে টাকা নিতে পারবেন যদি সে ব্যাংকের সুইফট কোড থাকে।

আরো পড়ুনঃ  ইউটিউব মার্কেটিং কি?
*গুগল অ্যাডসেন্স কি?

আশা করি ইউটিউব থেকে আয় করার সহজ উপায় এবং ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় করার উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা পেয়েছেন। যদি ইউটিউবে আয় করার উপায় নিয়ে কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে নিচে কমেন্ট করে জানাতে পারেন। ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *